How important is cow grass in bangladesh

ডেইরী ফার্ম শুরুর আগে পার্ট-০২।How important is cow grass in bangladesh

ডেইরী ফার্ম শুরুর আগে পার্ট-০২।How important is cow grass in bangladesh

আসসালামুয়ালাইকুম প্রিয় খামারী ভাই ও বোনেরা ডেইরি ফার্ম শুরুর আগে সিদ্ধান্ত আলোচনায় আপনাদের সকলকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

প্রিয় বন্ধুরা আজকের আলোচনার বিষয় গাভীর খাদ্যের যোগান ও খাদ্য নিয়ে চলুন শুরু করা যাক।

আপনি সময় দিতে পারবেন এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে (প্রথম পার্ট) যে ব্যাপারটি আছে সেটি হচ্ছে গাভীর খাবারের উৎস।
যেমন কি খাবার খাওয়াবেন খরচ কেমন সব সময় পাওয়া যায় কিনা। সবসময় মনে রাখবেন আপনি যতটা খাদ্য খরচ কমাতে পারবেন ততটা লাভের পরিমাণ বেশি হবে। যদিও আগের তুলনায় এখন খাদ্য উৎপাদন অনেক বেড়েছে এবং খাবারের দামও বেড়েছে তাই গাভীর খাদ্য ব্যাপারটা মাথায় রাখতে হবে ।এটাও মনে রাখতে হবে যে গাভী যেন কম খাদ্য না পায় এবং পুষ্টি যেন অপুর্ন না থাকে। খামার এর.৬০% চলে যায় খাবারের পেছনে তাই সথাসম্ভব নিজের খাবার বানাতে হবে যাতে পুষ্টিগুণ যথাসম্ভব থাকে এবং খরচ তুলনামূলক কম হয়।

যদিও আমাদের দেশ দেশ কৃষি প্রধান দেশ তারপরেও এমন অনেক এলাকা আছে যেখানে গাভীর ঘাস প্রাকৃতিক ভাবে জন্মানো সম্ভব হয় না বা পরিবেশ উপযোগী নয়।আপনি যদি মনে করেন যে ঘাস ছাড়া আপনি গাভী লালন পালন করবেন তাহলে আপনি খামারে খুব একটা লাভবান হতে পারবেন না। এক্ষেত্রে আপনার লসের সম্ভাবনাটা বেশি থাকবে। কেননা বর্তমানে গাভীর খাদ্যের যে পরিমাণে দাম সেই পরিমাণে দুধের দাম নেই ।সেক্ষেত্রে আপনার খামার করার আগে এবং চিন্তা করার আগে আপনাকে গাভী ক্রয়ের আগেই গাভীকে কি কি খাওয়াবেন তা গাভীর জন্য যথেষ্ট কিনা? গাভীর জন্য যথেষ্ট পরিমাণে ঘাসের জোগান দিতে পারবেন কিনা সে ব্যাপারে চিন্তা করতে হবে।আর যদি মনে করেন ঘাস উৎপাদন করা সম্ভব নয় তাহলে আপনার ক্ষেত্রে খামার না করাটাই ভালো হবে।

Todays Topic: How important is cow grass in bangladesh

একটা ব্যাপার খেয়াল করে দেখবেন যখন আপনি কোন গাভী বিক্রেতার সাথে কথা বলবেন তখন তারা আপনাকে অনেক ৭-৫ বুঝ বোঝাবে বলবে ঘাস ছাড়াই লালন-পালন করে সফলতা সম্ভব কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন কথা বলে ঘাস ছাড়া কখনোই আপনি সেরকম লাভবান হওয়া সম্ভব না।আর যদি ঘাস ছাড়াই দুধ পেতে চান তাহলে আপনাকে ফিড খাওয়াতে হবে এবং অন্যান্য ব্যয়বহুল খাদ্য খাওয়াতে হবে এতে করে আপনার লাভের থেকে লসের পরিমাণটাই বেশি হবে। আপনাকে দেখতে হবে আপনার আশেপাশে যদি আবাদি জমি থাকে তাহলে সবচেয়ে ভালো হয় সেখানে আপনি অনেক ধরনের ঘাস চাষ করতে পারবেন যেমন নেপিয়ার,পাকচং ঘাস, জাম্বু ঘাস, খেসারি,কালাই ইত্যাদি।আর যদি আপনার নিজস্ব কোন জমি না থাকে তাহলে লিসে নিতে পারবেন এমন কোন জমি খোঁজ করুন। সব কথার একটা কথাই যে আপনাকে ঘাসের চাহিদা পূরণ করতে হবে নইলে আপনি সফলতা মুখ দেখতে পারবেন না। ইউটিউব এর কল্যাণে আমরা অনেক কিছুই দেখি পানি ছাড়া ঘাস তৈরি অনেক রকমের ভিডিও আসলে সেগুলা কতটুকু উপকারী? তাই আপনারা হুজুগের বসে কোন কিছুই করবেন না। আপনাকে সবসময় মনে রাখতে হবে গাভীর খাদ্য যদি পুষ্টিকর না থাকে তাহলে আপনি বেশি পরিমাণে দুধ পাবেন না এবং গাভীর স্বাস্থ্য নষ্ট ও রোগবালাই বেশি হবে। আপনাকে খুব ভালো করে নজর রাখতে হবে দেখাশুনা করতে হবে যে আপনার গাভীর কোন পুষ্টির অভাবগুলো দেখাচ্ছে ।তাছাড়াও একটা নির্দিষ্ট সময় পরপর আপনাকে ভিটামিন মিনারেল দিতে হবে।

আমরা যদি গাভীর বানে পর্যাপ্ত পরিমাণ দুধ পুরা ল্যাকটেশন পিরিয়ড এ পেতে চাই তাহলে এমন ভাবে খাওয়াতে হবে যেন দানাদার খাদ্য ভিটামিন মিনারেল প্রিমিক্স ঘাস জাতীয় খাবার আশ জাতীয় খাদ্য যে পরিমাণে খাওয়ানো উচিত সেই পরিমাণেই যেন খাওয়াই। আমরা হয়তো হঠাৎ করে তাদেরকে দানাদার জাতীয় খাবার খাওয়ালাম দুধে মিষ্টির পরিমাণে বেশি হলে ক্রেতা বলবে হুয়ত দুধ খুবই ভালো কিন্তু এটা আসলে ল্যাকটেশন পিরিয়ড যখন শেষের দিকে তখন তার ক্ষমতা সেই পরিমাণে দুধ দিতে পারেনা।এতে করে আপনার লসের সম্ভাবনা থেকে যাবে। অনেকে যাও খাওয়ায় চালের পরিমাণ অনেক বেশি খাওয়ায় মানে দেখা যায় যে গরু যে হজম করে তার পেটেও বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হয়।স্বাভাবিক ভাবে প্রতি 100 কেজি খাদ্যের মধ্যে থেকে 4 কেজি দানাদার খাদ্য দিতে হয়। কিন্তু যদি অধিক উৎপাদনশীল হয় প্রতি কেজি দুধের জন্য প্রত্যেকের জন্য আধা কেজি দানাদার খাদ্য বেশি প্রদান করতে হয়।একটি গাভীর দৈহিক ওজনের ১০% তাকে খাবার দিতে হয়। এর মধ্যে দানাদার খাদ্যের একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ আছে ঘাসের একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ আছে। আমরা যদি গরু বেঁধে রেখে সারাক্ষণ ঘাস খাওয়াই সেটাও ঠিক না। কিছুটা অর্ধেক ভাগ সেখানে খাবে অর্ধেক ঘাস ঘুরে বেরিয়ে খাবে যদিও তা আমাদের দেশে অনেকেরই সম্ভব না। এখানে খোলা মাঠে ঘুরে বেরিয়ে খাবে তাহলে যে চর্বি কণাগুলো সেগুলো ভাঙবে দুধে পর্যাপ্ত পরিমাণ আসবে তার শরীর ভালো থাকবে রোগ ও কম হবে।How important is cow grass in bangladesh

পরিশেষে একটা কথাই বলতে চাই গাভীর ফার্ম করার আগে জানুন,বুঝুন সিদ্ধান্ত নিন।হুজুগেই কোন কিছুর সিদ্ধান্ত ভালো ফল আনতে পারে না।যদি পর্যাপ্ত খাবারের যোগান না দিতে পারেন তাহলে খামার করবেন না।এতে করে অনেককেই দোশারফ করতে হবে আপনাকে।আমাদের প্রথম সম্যসাটাই হলো আমরা জ্ঞান লাভের আগেই লাভের চিন্তা করে ফেলি।ফলে অনেক টাকা আমাদের লসের সম্মুখিন হতে হয়।
প্রিয় ভাই ও বোনেরা আমি অনেক কষ্ট করে এই সিরিজ লেখাটি লিখি কোন অর্থ বা সাহায্য পাওয়ার জনইয় না।শুধু আপনাদের সুন্দর একটা ধারনা দেয়ার জন্য।অনেকেই আছে আমাদের আশে পাশে যারা এই লেখাগুলা দেখেই না বা পড়তেও পারে না।তাদের জন্য আমাদের ভিডিও টিউটোরিয়াল আছে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে।যাতে আপনার আশেপাশের সবাই আমার এই লেখাটি পড়তে ও দেখতে পারে অবশ্যই শেয়ার করবেন।ভাই লাইক শেয়ার করতে টাকা লাগে না আপনার একটা শেয়ার অনেকের লসের হাত থেকে বাচাতে পারে।

ধন্যবাদ ভালো লাগলে লাইক কমেন্ট ও শেয়ার করবেন।আমার জন্য দোয়া করবেন ও ভুল ভ্রান্তি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।ধন্যবাদ।আর হ্যা যারা আমার আগের পার্ট-০০ ও পার্ট -০১ দেখেন নাই তারা গ্রুপে অথবা আমাদের ওয়েবসাইটে দেখতে পারেন।ধন্যবাদ।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল ঃ BD Dairy Farm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *